Breaking News

আগামীকালের লকডাউনে যা খোলা, যা বন্ধ জানা যাবে এই ওয়েবসাইটে!

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে দেশজুড়ে চলছে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’। আপাতত সাত দিনের জন্য কঠোর এই বিধিনিষেধ পালন করা হচ্ছে। প্রয়োজনে আরও বাড়ানো হতে পারে। চলমান লকডাউনে সবার সুবিধার্থে কিছু কিছু সেবা চালু রয়েছে। আবার অনেক সেবা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য চালু রাখা হচ্ছে। কখন কোন সেবা সচল, বিষয়টি যদি মাথায় না থা‌কে তাহলে চিন্তা নেই। মুহূর্তেই সমাধান দেবে ‘ইজ টুমরো লকডাউন’।

 

এ‌টি মূলত ওয়েবসাইট। www.istomorrowlockdown.com এটিতে ঢুঁ মারলেই বুঝতে পারবেন দেশে লকডাউনের পরিস্থিতি। আগামীকাল কোন সেবা খোলা, বন্ধ কিংবা আংশিক চালু থাকবে, তার বিস্তারিত আপডেট দেয়া হচ্ছে এই ওয়েবসাইটে।

 

ওয়েবসাইটটি ‘আগামীকাল কি হরতাল’থেকে সম্পূর্ণ অনুপ্রাণিত বলে জানিয়েছেন ইশমাম চৌধুরী। তিনি এই ওয়েবসাইটের উদ্যোক্তা ও সহকারি ডেভেলপার। তিনি বলেন, মেসেঞ্জারে আমার বন্ধু আলফা ক্যাটারিংয়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও মুহাম্মদ আসিফ খান এমন একটি অ্যাপের ধারণা প্রস্তাব করেছিলেন। এই ও‌য়েবসাইটে লকডাউনের রিয়েল-টাইম আপডেটগুলো সহজেই পাওয়া যাবে।

 

‌তিনি আরও বলেন, এই ধারণাটা আমার কাছে খুবই ভা‌লো লেগে‌ছে। এটা ভেবে এখন ভালো লাগছে যে, আমাদের ছোট্ট এই উদ্যোগের কারণে অনেকেই উপকৃৎ হচ্ছেন। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলেই ইংরেজি সংস্করণে সব তথ্য দেখা যাবে। তবে ভিজিটররা চাই‌লে বাংলা সংস্করণও ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়া ডার্ক মোডের ফিচারও রয়েছে ‘ইজ টুমরো লকডাউন’-এ।

 

এই ওয়েবসাইটের তথ্যগুলো সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অব বাংলাদেশ (সিএএবি) এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ওয়েবসাইট থেকে নেয়া হয়।

 

 

 

আবহাওয়া অধিদফতর এবং বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রও দেশজুড়ে আগামী পাঁচ দিন বৃষ্টিপাত ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকার পূর্বাভাস দিয়েছে। এতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে। জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহের শেষের দিকে বন্যা শুরু হয়ে অন্তত ১০ দিন স্থায়ী হতে পারে।

 

জানা গেছে, দেশের বেশ কয়েকটি এলাকা টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে প্লাবিত হয়েছে। বাংলা ট্রিবিউনের জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যের ভিত্তিতে সেসব অঞ্চলের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

 

চট্টগ্রাম

গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে পানিবন্দি হয়ে মীরসরাই উপজেলার ১২নং খইয়াছরা ইউনিয়নের ফেনাপুনি গ্রামের প্রায় ১২০ পরিবার চরম দুর্ভোগে রয়েছে। জানা গেছে, উপজেলার করেরহাট, হিঙ্গুলী, জোরারগঞ্জ, কাটাছরা, দুর্গাপুর, মিঠানালা, মীরসরাই সদর, মীরসরাই পৌরসভা, খইয়াছরা, ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তও দেখা গেছে। খইয়াছরা ইউনিয়নের ফেনাপুনি এলাকার বাসিন্দা এস এম হাসান বলেন, এই গ্রামে আর থাকতে মন চাইছে না। বৃষ্টি হলে বসতঘরে পানি ঢুকে যায়।

 

উপজেলার ১৫নং ওয়াহেদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল কবির ফিরোজ জানান, পাহাড়ি ঢলে মাইজগাঁও, খাজুরিয়া, বড়কমলদহ, গাছবাড়িয়া গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া ইউনিয়নের হাবিব উল্লাহ ভূঁইয়া সড়ক, নিজামপুর রেল স্টেশন সড়কের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

About admin

Check Also

এক দিনে ১ কোটি লোককে টিকা দিল ভারত

ভারত শুক্রবার একদিনে প্রথমবারের মতো ১০ মিলিয়নের বেশি ভ্যাকসিন দিয়েছে। আজ শনিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, …

Leave a Reply

Your email address will not be published.