Breaking News

আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত ভুল: জর্জ ডব্লিউ বুশ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ মার্কিন ও ন্যাটো সেনাদের আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্তের সমাচলোনা করেছেন। তার দাবি, এমন সিদ্ধান্তের কারণে আফগানিস্তানের নিরীহ মানুষদের কট্টরপন্থী তালেবান গোষ্ঠীর হত্যাকাণ্ডের মুখে পড়তে হবে।

 

যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো চলতি বছরের জুনে আফগানিস্তান থেকে চূড়ান্ত পর্যায়ে সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশটি থেকে সব সেনা সরিয়ে নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

আজ বুধবার ডয়চে ভেলেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বুশ বলেন, ‘অবর্ণনীয় কষ্টের মুখে পড়তে যাচ্ছে আফগানিস্তানের নারী ও শিশুরা। সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত ভুল। নীরিহ আফগানিদের কট্টরপন্থী তালেবান গোষ্ঠীর শিকার হওয়ার জন্য ছেড়ে দেওয়া হল। এ সিদ্ধান্ত আমার মন ভেঙে দিচ্ছে।’

 

জানা যায়, চলতি বছরের এপ্রিলে আফগানিস্তান থেকে চূড়ান্ত ধাপে সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের কথা জানান বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সে সময় দেশটিতে আড়াই হাজার মার্কিন সেনা এবং সাড়ে ৭ হাজার ন্যাটো সেনাসদস্য অবস্থান করছিলেন।

 

এদিকে, মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীর সদস্যরা আফগানিস্তান ছাড়তে শুরু করার পর থেকে আফগানিস্তানে সংঘাত বেড়েছে। তালেবান চাইছে পশ্চিমা-সমর্থিত আফগান সরকারকে উৎখাত করতে। এর জের ধরে আফগান সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষের জেরে হতাহত হয়েছে বহু। আফগানিস্তানের বেশির ভাগ অঞ্চল দখলের দাবি করেছে তালেবান। এ কারণে আফগান বাহিনীর সদস্যরা দেশ ছেড়ে পালাতেও বাধ্য হচ্ছেন।

সূত্র: এনডিটিভি।

 

 

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে অসহায় দরিদ্র ও ভূমিহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসাবে দেওয়া ঘর নির্মাণে অনিয়মের বিষয় নিয়ে সারা দেশে তোলপাড় শুরু হলেও সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চল খ্যাত ধর্মপাশায় ৩০০ ভূমিহীন পরিবার ঘর পেয়ে তারা মহা আনন্দে দিন কাটাচ্ছেন। প্রথমদিকে কয়েকটি ঘরে ত্রুটি দেখা দিলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক ঘরের ত্রুটিপূর্ণ স্থানগুলো মেরামত করে দেওয়া হয়। এরপর থেকেই এ উপজেলায় ঘরের ত্রুটির বিষয়ে উপকারভোগীদের কাছ থেকে আর কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

 

এক কথায় বলতে গেলে এখানকার-৩০০ ভূমিহীন পরিবারই প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে দেওয়া এসব ঘর পেয়ে তারা এখন পরিবার নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জীবন যাপন করছেন।

গতকাল মঙ্গল ও আজ বুধবার দুইদিন সরেজমিনে উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের শেখেরগাঁও, গোপিনগর, সিমের খাল ও মধ্যনগর ইউনিয়নের নোয়াপাড়া, খালিশাকান্দা, জমশেরপুর, হরিপুর ও বৈঠাখালী এলাকায় ঘুরে ও উপকারভোগীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দীর্ঘদিন যাবত তারা অন্যের বাড়িতে মানবেতর জীবন যাপন করে আসছিলেন। কিন্তু এখন তারা প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে দেওয়া ঘর পেয়ে স্বাধীন ও শান্তিপূর্ণভাবে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন।

 

উপজেলার শেখেরগাঁও গ্রামের সুকেশ সরকার (৫৫) ও একই গ্রামের উপকারভোগী সবুজ মিয়া (৫০) বলেন, আমরা ভূমিহীন। আমাদের জমিজমা-বাড়িঘর বলতে কিছুই নেই। আমরা সারা জীবন অন্যের বাড়িতে পরিবার নিয়ে দিনযাপন করে আসছিলাম। আমরা দিন আইন্যা দিন খাই, কোনোদিন কল্পনাও করিনি আমরা পরিবার নিয়ে পাকা ঘরে থাকতে পারব।

About admin

Check Also

তালেবান ইস্যুতে যা বললেন মোদি!

দীর্ঘ ২০ বছর পর আফগানিস্তানের শাসন ক্ষমতা নিয়েছে তালেবান। এরই মধ্যে আফগানিস্তানের দুইটি ভারতীয় দূতাবাসে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.