Breaking News

‘আমি আমার ছেলেকে লঞ্চ করিনি, কারণ আমার অত টাকা নেই’

জি ফাইভের বমফাড়’ সিনেমার হাত ধরে বলিউডে পা রাখেন পরেশ রাওয়ালের ছেলে আদিত্য রাওয়াল। এ ছাড়া সঞ্জয় দত্ত, অর্জুন কাপুরের ‘পানিপথ’ ছবিতে সহ-চিত্রনাট্যকার হিসেবে কাজ করেছেন আদিত্য রাওয়াল। সম্প্রতি হনসল মেহতার ছবিতেও সই করেছেন আদিত্য। তবে এত দিন পরে ছেলের বলিউডে কাজ করা নিয়ে মুখ খুললেন পরেশ রাওয়াল।

 

বলিউডে তারকা  বাবা-মার হাত ধরেই তাদের ছেলে-মেয়েদের যাত্রা শুরু হয়। সে ক্ষেত্রে ছেলে-মেয়েদের প্রথম ছবির জন্য তারকাদের বিপুল পরিমাণ টাকা ঢালতে হয়। তবে আদিত্য রাওয়ালের ক্ষেত্রে তা হয়নি। ছেলেকে লঞ্চ করার বিষয়ে সম্প্রতি পরেশ রাওয়াল বলেন, ‘আমি আমার ছেলেকে লঞ্চ করিনি, কারণ আমার অত টাকা নেই। ছেলে-মেয়েদের লঞ্চ করার ক্ষেত্রে অনেক বড় কিছু প্রয়োজন। তার থেকে এটা ভালো নয় কি যে ও নিজের চেষ্টায় কাজ পেয়েছে। বাবার সাহায্যের প্রয়োজন ওর নেই।’

 

পরেশ রাওয়াল বলেন, ‘ বমফাড়’ ছবিতে আদিত্যর অভিনয় দর্শকদের ভালো লেগেছে। ও হনসল মেহতার মতো পরিচালকের ছবিতেও কাজ করছে। আদিত্য চিত্রনাট্য লিখতেও পারে।’

 

প্রসংগত অভিনয়ে আসার আগে নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটিতে স্ক্রিপ্ট রাইটিং নিয়ে পড়াশোনা শেষ করেছেন আদিত্য রাওয়াল । এ ছাড়া লন্ডন ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অব পারফর্মিং আর্টসে অভিনয়ের প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি।

 

 

 

 

বরগুনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি হাসানুর রহমান ঝন্টু জানান, পারিবারিক সহিংসায় সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকে শিশুরা। ক্ষতিগ্রস্তও হয় শিশুরা। বরগুনার অসহায় দুই শিশু আলিফ ও গালিব তার প্রমাণ। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এ দুই শিশুর কেউ দায়িত্ব না নেওয়ায় মানবিক কারণে বরগুনা প্রেস ক্লাবের সেক্রেটারি সোহেল হাফিজ ও তার স্ত্রী জাফরিন নিতু সন্ধ্যার দিকে তাদের বাসায় নিয়ে যান। তিনি আরো বলেন, দোষ-ত্রুটি যাই থাকুক তার সবই পরিবারের প্রাপ্তবয়স্কদের। এ ঘটনায় শিশুরা কেন ভুক্তভোগী হবে। এসব বিষয় নিয়ে সচেতনতার সঙ্গে আমাদের ভাবতে হবে।

 

এ বিষয়ে বরগুনা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাফিজ জানান, ভুক্তভোগী শিশু আলিফের সঙ্গে কথা বলে তিনি জেনেছেন, বাবার চাকরির সুবাদে তারা গাজীপুরে বসবাস করে আসছিল। সে সেখানকার একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী। সম্প্রতি আলিফ ইংল্যান্ডের একটি স্কুলে লেখাপড়ার সুযোগ পেয়েছে বলে সে জানায়। তার ভিসাও প্রস্তুত। করোনার কারণে তার ইংল্যান্ড যেতে দেরি হচ্ছিল। অথচ এমন একটি সময়ে তার দাদির দায়ের করা মামলায় কারাগারে রয়েছেন তাদের মা আনিতা জামান।

 

 

শিশু আলিফ আরো জানায়, তার বয়স এখন ১২ বছর। অথচ মিথ্যা তথ্য দিয়ে মামলায় তার বয়স ১৮ বছর দেখিয়ে তাকেও আসামি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে উভয় পক্ষের আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনাকালীন সময়ে গত দুই তিন মাস ধরে শিশু আালিফ ও গালিফকে নিয়ে মা আনিতা জামান বরগুনায় তাদের গ্রামের বাড়ি আয়লা-পাতাকাটা ইউনিয়নের খেজুরতলা গ্রামে থাকছেন। জমিজমা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে পারিবারিকভাবে আলিফ ও গালিফের বাবা মনিরুজ্জামান জুয়েল ও তার মা-বোনদের মাঝে কলহ চলছে। এসব কলহের জের ধরে আলিফের দাদি আলেয়া বেগম তার ছেলে মো. মনিরুজ্জামান ও পুত্রবধূ আনিতা জামানের বিরুদ্ধে বরগুনা থানায় মারধরের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন। সে মামলায় গত ১৫ জুলাই বৃহস্পতিবার আলিফ ও গালিফের মা আনিতা জামানকে জেলহাজতে পাঠায় আদালত।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.