Breaking News

আর্জেন্টিনাকে ৫-০ গোলে হারাবে ব্রাজিল!

১৪ বছর পর বড় কোন টুর্নামেন্টের ফাইনালে দেখা হচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার। আগামী রবিবার (১১ জুলাই) ব্রাজিলের ঐতিহাসিক মারাকানা স্টেডিয়ামে কোপা আমেরিকার শিরোপা লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই ফুটবল পরাশক্তি।

 

ফাইনাল এমনিতেই রোমাঞ্চকর, তার মধ্যে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথ, নেইমার-মেসির শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। সব মিলিয়ে উত্তেজনা আর রোমাঞ্চের পারদ বেড়ে অসীম পর্যায়ে উঠেছে। শুধু লাতিন আমেরিকা নয়, উত্তেজনার পারদে ফুটছে পুরো ফুটবলবিশ্ব।

 

ফাইনাল যত কাছাকাছি হচ্ছে, ততই যেন আলোচনা, জল্পনা-কল্পনা বেড়েই চলেছে। কেমন হবে কৌশল, একাদশে থাকবেন কে, ফলাফলই বা কেমন হবে তা নিয়েও আছে আলোচনা। এরই মধ্যে ব্রাজিলের রাষ্ট্রপতি জাইর বলসোনেরো করে বসলেন এক ভবিষ্যদ্বাণী। জানালেন, কোপা আমেরিকার ফাইনালে তার দেশ ব্রাজিল আর্জেন্টিনাকে হারাবে ৫-০ গোলে!

 

দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন দেশের নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠক হয়েছিল গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে। সেখানে হাজির ছিলেন কোপা আমেরিকার ফাইনালে থাকা দুই দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার দুই রাষ্ট্রপতিও। অবধারিতভাবেই সেখানে উঠে এলো চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশের লড়াইয়ের প্রসঙ্গটি। তখন আর্জেন্টাইন রাষ্ট্রপতি আলবার্তো ফার্নান্দেজের সামনেই অবশ্য বলসোনেরো করে বসেছেন এ ভবিষ্যদ্বাণী।

 

বলেছেন, ‘ব্রাজিল ম্যাচটা জিতবে ৫-০ ব্যবধানে।’ তবে এটাই হবে দুই দেশের একমাত্র মুখোমুখি লড়াই। এর বাইরে আর কোনো লড়াই নেই দুই দেশের মধ্যে, ইংগিত দিয়ে বলসোনেরো বলেন, ‘একমাত্র যে লড়াইটা হবে আগামী রবিবার, তা হবে মারাকানায়, ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনার মধ্যে; এর বাইরে কিছু নয়।’

 

এ কথা বলে এরপর তিনি রসিকতা করে পাঁচ আঙুলও দেখিয়েছেন আর্জেন্টাইন রাষ্ট্রপতিকে। ফের্নান্দেজ অবশ্য এর জবাবে কিছুই বলেননি, মুচকি হেসেছেন শুধু।

তথ্যসূত্র : মার্কা।

 

 

 

ফলে এবারের ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়ন ট্রফি যারাই জিতুক তার অংশিদারিত্ব যে চেলসি পাচ্ছে তাতে কোনো সন্দেহই আর থাকছে না। কিন্তু থিয়াগো সিলভা যদি দক্ষিণ আমেরিকার প্রাচীনতম টুর্নামেন্ট কোপা আমেরিকার শিরোপা ঘরে তুলতে পারেন তাহলে তিনি চেলসিকে সাউথ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নদের হোম বলে উল্লেখ করতে পারবেন।

 

করোনা মহামারির কারণে বিলম্বে শুরু হওয়া এই বছরের কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠেছে অধিনায়ক সিলভার ব্রাজিল। এই পথে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সেমিফাইনালে তারা ১-০ গোলে হারিয়েছে পেরুকে। অথচ গ্রুপ পর্বে এইে দলটিকেই ৪-০ গোলে ধ্বসিয়ে দিয়েছিল সেলেকাওরা।

 

তবে চিলির বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের হয়ে একমাত্র জয়সুচক গোলের মালিক লুকাস পাকুয়েটা এসি মিলানে খেললেও গত গ্রীষ্মে তিনি ক্লাবটি ছেড়ে যোগ দিয়েছেন অলিম্পিক লিওনাইসে। গোলদাতা হিসেবে তিনি খুব একটা পরিচিতি না পেলেও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অনেক সময় তাদের মতো খেলোয়াড়রাই নায়ক হয়ে উঠতে পারেন।

 

এদিকে ২০০৮ সালে ২১ বছর বয়সে অলিম্পিক শিরোপা জয়ের পর প্রথমবারের মতো মেসির নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক শিরোপা ঘরে তোলার জন্য মুখিয়ে আছে আর্জেন্টিনা।

About admin

Check Also

কোয়ার্টার ফাইনালে দেখা হতে পারে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার?

জাপানের রাজধানী টোকিওতে চলছে অলিম্পিক প্রতিযোগিতা। সেই প্রতিযোগিতার ফুটবল ইভেন্টে খেলছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা-জার্মানির মতো দলগুলো। প্রতিযোগিতার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.