Breaking News

কোয়ার্টার ফাইনালে দেখা হতে পারে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার?

জাপানের রাজধানী টোকিওতে চলছে অলিম্পিক প্রতিযোগিতা। সেই প্রতিযোগিতার ফুটবল ইভেন্টে খেলছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা-জার্মানির মতো দলগুলো। প্রতিযোগিতার কোয়ার্টার ফাইনালে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের সঙ্গে দেখা হয়ে যেতে পারে আর্জেন্টিনার।

 

এবারের প্রতিযোগিতায় চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে ১৬টি দল অংশ নিয়েছে। প্রতি গ্রুপ থেকে ২টি দল যাবে কোয়ার্টার ফাইনালে। ব্রাজিল খেলছে ‘ডি’ গ্রুপে। অন্যদিকে, আর্জেন্টিনা খেলছে ‘সি’ গ্রুপে। নিয়ম অনুযায়ী ‘ডি’ গ্রুপের শীর্ষ দল কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হবে ‘সি’ গ্রুপের রানার আপ দলের বিপক্ষে। তাই, ব্রাজিল ‘ডি’ গ্রুপের শীর্ষে আর আর্জেন্টিনা ‘সি’ গ্রুপের রানারআপ হলে কোয়ার্টার ফাইনালেই দেখা হবে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার।

 

টুর্নামেন্টে দুটি ম্যাচ খেলে একটি জয় ও একটি ড্র নিয়ে ‘ডি’ গ্রুপের শীর্ষেই রয়েছে ব্রাজিল। সেলেসাওরা গ্রুপের শেষ ম্যাচ খেলবে সৌদি আরবের বিপক্ষে। তাই ধরে নেওয়া যায়, শীর্ষে থেকেই গ্রুপ পর্ব শেষ করবে ব্রাজিল।

 

অন্যদিকে, প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারলেও দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে ‘সি’ গ্রুপের তৃতীয় স্থানে রয়েছে আর্জেন্টিনা। তারা শেষ ম্যাচটি খেলবে স্পেনের বিপক্ষে। তাই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়াটা কঠিন আর্জেন্টিনার জন্য। কোয়ার্টারে খেললে গ্রুপের দ্বিতীয় দল হিসেবেই খেলার সম্ভাবনা বেশি আর্জেন্টিনার। তাই অলিম্পিকের কোয়ার্টারে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার লড়াই দেখার সম্ভাবণা তৈরি হয়েছে আবার।

 

 

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বিদেশিদের জন্য সৌদি আরবে গিয়ে হজ ও ওমরাহ পালন দীর্ঘদিন বন্ধ থাকলেও এবারে বাংলাদেশসহ কয়েকটি দেশের জন্য ওমরাহ পালনের নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হয়েছে। আগামী ১০ আগস্ট থেকে বিদেশি মুসল্লিদের সৌদি আরবে গিয়ে ওমরাহ করার অনুমতি দেবে দেশটির সরকার। আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী তারিখটি ১ মোহররম ১৪৪৩। সৌদির হজ ও ওমরাহ বিষয়ক হারামাইন শারিফাইন নামক অফিসিয়াল পেজে এমন তথ্য দেওয়া হয়েছে।

 

তবে এবারে বিদেশ থেকে ওমরাহ পালনে আসতে ইচ্ছুক মুসল্লিদের ওপর কিছু শর্ত আরোপ করা হয়েছে। সেগুলো হলো :

ওমরাহ করতে ইচ্ছুক মুসল্লিরা কেবল ৯টি দেশ ছাড়া বিশ্বের সব দেশ থেকে সরাসরি ফ্লাইটে সৌদি আরবে প্রবেশ করতে পারবে। ওই ৯টি দেশ হচ্ছে- ভারত, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, মিসর, তুরস্ক, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা ও লেবানন। তবে এই দেশগুলো থেকে কোনও মুসল্লি সৌদি আরবে প্রবেশ করতে চাইলে তাদেরকে ওই ৯টি দেশ বাদে তৃতীয় আরেকটি দেশে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে তবেই সৌদি আরবে যেতে হবে।

 

এ ছাড়া ওমরাহ পালনে ইচ্ছুক সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে করোনাভাইরাসের সম্পূর্ণ ডোজ টিকা নিতে হবে। এবং সেই টিকা হবে ফাইজার, মর্ডানা, অ্যাস্ট্রাজেনেকা অথবা জনসন অ্যান্ড জনসনের। এসব টিকার দুটি ডোজ গ্রহণ করা ছাড়া সৌদি আরবে প্রবেশ করা যাবে না।

 

কেউ যদি চীনের তৈরি সিনোফার্মের টিকার দুটি ডোজ টিকা নিয়ে থাকেন, তাহলে তাদেরকে ফাইজার, মর্ডানা, অ্যাস্ট্রাজেনেকা অথবা জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকার বাড়তি বুস্টার ডোজ গ্রহণ করতে হবে।

About admin

Check Also

লোকে সাকিবকে নিয়ে প্রশ্ন তোলার সাহস পায় কীভাবে : মুশফিক

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ক্রিকেটে ফিরলেও এক বছরের বেশি সময় ধরে তার অল-রাউন্ড রূপটা ফুটে উঠছিল না। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *