Breaking News

লকডাউনে ফ্রি খিচু’রি নিয়ে রোগীর স্বজনদের পাশে হোটেল

কঠোর লকডাউন কার্যকরের লক্ষ্যে প্রশাসন নানামুখী উদ্যোগ দিয়েছে। তারই অংশ হিসেবে বরিশালের সকল খাবার হোটেল ও রেস্তোরাঁ বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় স্থানীয় প্রশাসন। এতে বড় ধরনের ভোগান্তির মধ্যে পরেন বিভিন্ন হাসপাতলে ভর্তি রোগীর স্বজনরা। বিশেষ করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লের রোগীর স্বজনরা। রোগীদের খাবার হাসপাতাল থেকে সরবরাহ করা হলেও ভোগান্তির শেষ ছিল না স্বজনদের।

 

নগরীর সকল হোটেল রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকায় একই দুর্ভোগে আছেন তারা। খাবার না পেয়ে মহাসংকটে পড়া শেবাচিম হাসপাতা’লে ভর্তি হওয়া রোগীর স্বজনদের পাশে দাঁড়িয়েছেন হাসপাতা’লের সামনের হোটেল মালিকরা। তারা খিচুড়ি রান্না করে রোগীর স্বজনদের মাঝে গতকাল শনিবার থেকে বিনামূল্যে বিতরণ করছেন। আজ রবিবার দুপুরেও হাসপাতা’লের মূল গেট সংলগ্ন হোটেলগুলোর সামনে বিনামূল্যে এই খিচুড়ি বিতরণ কার্যক্রম চলে। লাইনে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে রোগীর স্বজনরা সেই খিচুড়ি সংগ্রহ করছেন। খিচুড়ি সংগ্রহ করতে আসা ফাতেমা বেগম, আকলিমা আক্তার, ইউসুফ ব্যাপারী জানান, বিভাগের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে চিকিৎসার জন্য তাদের স্বজনদের হাসপাতলে ভর্তি করেছেন।

 

লকডাউনের কারণে গ্রাম থেকে তাদের স্বজনরা আসতে পারছেন না। তাই শহরের আনাচে কানাচে থাকা আত্মীয়দের কাছ থেকে খাবার সহযোগিতায় পাচ্ছেন না। তাই যারা আছেন, তারাই রোগীর পাশে থাকছেন। খাবারের দোকান বন্ধ থাকায় তারা সংকটে পড়েছেন। হাসপাতাল সূত্র বলছে, প্রতিদিন গড়ে দেড়সহস্রাধিক রোগী হাসপাতা’লে থাকছেন। প্রতি রোগীর সঙ্গে সহযোগিতার জন্য গড়ে তিনজন করে স্বজন থাকছেন। সে হিসেবে প্রতিদিন শেবাচিম হাসপাতা’লে পাঁচ সহস্রাধিক রোগী ও স্বজন থাকছেন। কিন্তু হাসপাতাল থেকে শুধুমাত্র রোগীদের খাবার সরবরাহ করা হয়। খাবারের মান নিয়ে সবসময় প্রশ্ন উঠছিল। তাই বেশির ভাগ রোগী সেই খাবার খাচ্ছেন না। প্রত্যন্ত এলাকা থেকে আসা রোগী ও স্বজনরা হাসপাতা’লের সামনের এলাকার হোটেল থেকে তিন বেলা খাবার কিনে খান। প্রশাসন হোটেলগুলো বন্ধ করে দেওয়ায় শনিবার সকালে ঘুম থেকে উঠেই খাবার সংকটে পড়েন রোগী ও স্বজনরা।

 

 

শেবাচিম হাসপাতাল সংলগ্ন বাঁধ রোডের একটি হোটেলের মালিক পবিত্র দেবনাথ। তিনি বলেন, হাসপাতা’লের আশপাশে ৯টি খাবার হোটেল রয়েছে। শেবাচিম হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন রোগী ও তাদের স্বজনদের বেশির ভাগই তিন বেলা খাবারের চাহিদা মেটান হোটেলগুলো। শুক্রবার রাতে পু’লিশ সদস্যরা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত হোটেলগুলো বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। ফলে শনিবার থেকে হাসপাতাল এলাকার সবগুলো খাবার হোটেল বন্ধ রয়েছে। তিনি আরো বলেন, শনিবার সকালে হোটেল বন্ধ দেখে খাবার নিতে রোগীর স্বজনরা খাবার সংকটে পরেন। খাবারের জন্য হইচই শুরু করে দেন। ঝুপড়ি চায়ের দোকানের রুটি-কলা মুহূর্তের মধ্যে শেষ হয়ে যায়। এসব মানুষের দুর্দশা দেখে হোটেল মালিকরা চাল-ডাল দিয়ে খিচুড়ি রান্না করে শনিবার থেকে বিনামূল্যে বিতরণ শুরু করেন। রোগীদের স্বজনরা দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে সকালের খিচুড়ি সংগ্রহ করেন। কিন্তু দুপুর থেকে পরবর্তী বেলার খাবারের সংকট রয়েই গেছে।

 

 

 

উপহারসামগ্রীর মধ্যে ছিল হাড়িভাঙা জাতের দুই হাজার ৬০০ কেজি আম। আম পাঠানো বিষয়ে কাস্টমসের কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট রবি এন্টারপ্রাইজ। এসময় উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম লিটন, শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মীর আলিফ রেজা, নাভারন সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরান, বেনাপোল স্থলবন্দরের উপ-পরিচালক মামুন কবীর তরফদার, কাস্টমসের ডিসি অনুপম চাকমাসহ আরও অনেকে।

 

রবিবার ছাত্র অধিকার পরিষদের একাধিক নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। একইসঙ্গে আগামী এক মাসের মধ্যে নতুন রাজনৈতিক দল গঠন করার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলেও জানান তারা।

এর আগে এক বিজ্ঞপ্তিতে দেখ যায় ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর নিজেকে বাংলাদেশ ছাত্র, যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদের সমন্বয়ক উল্লেখ করে একটা সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন। যেখানে সংগঠনের শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এনে আহ্বায়ক রাশেদ খান ও যুগ্ম আহ্বায়ক সোহরাব হোসেনকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়েছে। একইসঙ্গে স্থায়ী বহিষ্কার কেন করা হবে না সেই মর্মে পাঁচ সদস্যের একটা তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

About admin

Check Also

এক দিনে ১ কোটি লোককে টিকা দিল ভারত

ভারত শুক্রবার একদিনে প্রথমবারের মতো ১০ মিলিয়নের বেশি ভ্যাকসিন দিয়েছে। আজ শনিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, …

Leave a Reply

Your email address will not be published.